LGBTQIA : Written By Yamin From Bangladesh

Achievement, বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর ওয়াহি, Education, Global Issue, Humanitarian, Mythology, Social Work, Uncategorized, Yoga

The Society has to be beautiful, to help when someone is in danger. Girls will be given the highest respect and rights. Everyone should dress according to their choice, not according to any religion. Every human being will have the right to love other human beings. Society must be under women. If someone is married in the society, it must be married according to the legal age, for which the lawyer must be present. Marriage below 18+ should not be allowed. Society must be science based. No animal should be killed in this society. Vegetarianism is the best Food. In this society children need to be well educated and know how to improve their lives. In this society, Transgenders will be given respect and dignity. You can love them. Can be eaten with them. This society will accept LGBTQIA. Homosexuals will not be punished in any way. In this society, if one believes in religion, one should not be an extremist. Because if you are an extremist, your house will be vandalized, so these things will not work in this society. If you want to protest about something, you have to write and do it orally. Children have to be well-educated from an early age, no fiction. Even if everything is science based, it should not go against the environment. Trees to be planted are not thorns. There should be no pollution in this society. In this society everyone should know that we are all human beings. There will be no poor in this society. “He is not poor in money, he will be poor in deeds” and “He is not rich in money, he is civilized and rich in deeds”. Society will be love, there will be no Violence and Greed.

Happy Doctor’s Day

Achievement, বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর ওয়াহি, Education, Global Issue, Humanitarian, Nature Lover, Social Work, Talented Bishnupriya Manipuri, Uncategorized, Yoga

1st July is Celebrated as ‘National Doctor’s Day’ by the Indian Medical Association (IMA). Commemorating the iconic and internationally renowned medical Practitioner, Dr Bidhan Chandra Roy Who Served as a Physician, a Freedom fighter, an Educationist and a Politician.
Each Year on July 1 National Doctor’s Day is Celebrated in India. This Special Day is celebrated to thank them for their immense contributions to Mankind.

মণিপুরর ওয়ারি – অমিত সিংহ বিষ্ণুপ্রিয়া, কৈলাশহর (ত্ৰিপুরা)।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর ওয়াহি, Bishnupriya Manipuri History, Humanitarian, Social Work, Uncategorized

মনিপুরর ইতিহাস এহানল ঐতিহাসিকর মত তিল নেই। দাপা আহান ঐতিহাসিক এবাকার মণিপুরর উহানের মহাভারতে উল্লেখিত মণিপুরর উহান বুলিয়া দাবি করতারা। আরাক আগদে দাপা আহানে মহাভারতর মণিপুর বুলতে, কিলঙ্গ রাজ্য এবাকার উরিষ্যা উহান বুলিয়া নিজর নিজর মত ফঙকরতারা।
মণিপুর লাম এহানর গজে আলোচনার পয়লাদে মণিপুরর মাঠিত থাগেসেগা লকতাক হ্ৰদ এগর সম্পর্কে আলোচনা বা হারপানি থক, কিয়া বুল্লেতে ঔ লকতাকর লগেই অঙ্গাঅঙ্গিভাবে নাপয়া আসে আমার বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর ইতিহাস হান। এ মৈতৈ মণিপুরী দাপা আহানে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী দাপা এহানরে মিয়াং / খালাসা / কালিসা মাত্তারা ৷ এরে ‘মিয়াং’ ওয়াহি এগর অর্থহান অইলতাই − বিদেশী ৷ যেহান চীনা ঠারর অপভ্ৰংশহান। চীনা ঠার ‘Meung’ ওয়াহি এগো Miyang বা Mayang ওয়াহি এগ হঙসে বুলিয়া প্ৰাবন্ধিকারে উল্লেখ করেসি। আরাক বেদে ঐতিহাসিক মহে্ন্দ কুমার সিংহ বারো
ভাষাতত্ববিদ মঙ্গল বাবু সিংহ ‘ময়াং’ ওয়ািহ এগর বিশদ ব্যাখ্যা করেসি, ‘ময়াং’ শব্দে গন্ধর্ব নির্দেশ করে বুলিয়া মাতেসি। বারো চীনা ওয়াহি ‘খালাসা’ মানে ‘বদ্বজলের সন্তান’, ঔ ‘খালাসা’ ওয়াহি এগর কারণে ইতিহাসর মিমুত অসে য়ারি উহান ফঙকরের যে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী এতা মণিপুরর আদিবাসী বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী দাপা উহান মনিপুরর লকতাক হ্ৰদর কাদাবারাত বসবাস করলাতা, ঔহানে মৈতৈ মণিপুরী দাপা উহানে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরে মণিপুরীর ‘খালাসা’ বুলিয়া ডাকলাতা।
“Kha-la-chais evidently means the children of the wide lake, and probably refer to the race of
people who lived in the plain portion of the Manipur valley.”
ঐতিহাসিক রাজমোহন নাথ ‘খালাসা’ বুলতে কিহান মাতের –
“The big Lake is called kha-la (kha- close water, lake; la- wide) by the Chinese and the country of the
wide lake was called meung-kha-la which has gradually been transformed into Linguistic survey of
India.” মা বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী দাপার ঠারহানরে ইন্দো ইউরোপীয়ান ঠারর অন্তভুক্ত করেসি। বারো মৈতৈ দাপারে তিব্বোতো- বার্মানর অ্ন্তভুক্ত করেসি। বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর ইতিহাসল যেসাদে ঐতিহাসিকর মত তিল নেই ঠিক ঔসাদে মৈতৈ দাপার ইতিহাসলৗ মত তিল নেই। ডঃ সুনীতিকুমার চ্যাটার্জ্জীর মতে “The meithei or Manipuri are the most advance section of the kuki chin
people” বারো Thomas Callan Hudson is of the opinion that the group name meithei has been derived from Mi-man/people and thei-separate.” টি সি সাহেবর তথ্য এহানাত্ত্ব হারেপেয়ারহান যে সংমিশ্ৰনে হঙসে মেইথেই বা মৈতৈত জাতি। Brian Houghton Hodgson গিরকে বারো Moitay বুলিয়াও উল্লেখ করেসে। “Mekhali or mekhley” বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরে বারো ভাষা গত তঙালর কারণে দুহান ভাগ করেসি,
রাজার গাঙ (King villagers), মাদই গাঙ (Queen villagers). ঠিক উসাদে Valley Society of Manipur গ্ৰ্ন্থর মাতুঙ ইলয়া মাততে গেলেগা মৈতৈ মণিপুরীরে তিনহান ভাগে ভাগ করেসি।

  1. They are formed of three distinct groups namely the Mitaya Ariwa, Nongchup Haram and Nongpok
    Haram, the last two groups are foreigners who were gradually absorbed in the meithei fold through
    the adoption of lineage customs and behavior.”
    ঔহানে মৈতৈ উতায় Nongchup Haram দাপারে Mayang বুলিয়া ডাহেসি। “It may be mentioned here that
    some of the common meitei particularly the Nongchup Haram are called Mayang to distinguish
    them from Mitaya Ariwa.”
    এবাকা আঙসিল অইক আলোচনা বিষয়হানাত বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী বারো মৈতৈ মণিপুরী দ্বিয় দাপার ঠার তঙাল
    অইেলও সংস্কৃতি তঙাল নাগই। ১৭০৯-১৭৪৮ এর আগে মৈতৈ দাপা উহান বনর দৌ হমাদেসি, ঔ দৌ অতা
    ইলাতাই − নংপুক, নিংফেট, পানখৈবী, থাংজিং আর আরতাও। এহানর প্ৰমাণ ঐতিহাসিক মৈরাঙথেম কীর্তি সিং গিরকে দেসে, “The Bishnupriya are traditionally Hindus, the meithei accepted vaishnavism during
    the reign of Gareeb Niwaz (1709-1948) and the cult of Goudiya Vaishnavism flourished during the
    reign of Jai Singh (1759-1798)”
    বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী জাত এহান প্ৰাচীন কালেত্ত্ব বর্ণহিন্দু অনির কারণে হিন্দু দৌদুকর পূজা করলা, বর্তমানে মনিপুরে আসে বিষ্ণুর মন্দির এহানর ডাঙর প্ৰমাণ আহান। মণিপুরর কাদার দেশহান মায়ানমার (Burma) অর বাগান (পাগান)
    উপেইর মা বিষ্ণু মন্দির আগ আবিষ্কার অসে। যেগর নাঙহান “নাথলাঙ কিয়াং মন্দির (Nathloung kyaung temple)
    বুলিয়া মাততারা। ৯৩১ খ্ৰীস্টাদ্বে হঙসে ঔ মন্দিরর তুল এবাকার মণিপুরর বিষ্ণু মন্দিরর গঠনশীল উহান
    আকহান। ঔহানে অনুমান করে পারিয়ার যে ঔ মন্দির উগ দশম দ্বিয়াদশ খেলতামে হঙসেগ। বারো এহানাওই প্ৰমাণ অর যে দশম-দ্বাদশ শত্বাদীর উবাকা মণিপুর বারো কাদার দেশ মায়ানমারে হিন্দু রাজার প্ৰভাব
    আসিল। প্ৰসঙ্গত আরাক বিষয় আহান মাতিয়া থনা থক যে মহারাজা পামহৈবার আরাক নাঙ আহান “গরীব
    নওয়াজ” যেহানর অর্থহান দরিদ্ৰের আশ্ৰয়। ‘নেওয়াজ’ শব্দ উহান পার্শী শব্দহান যেহান গিরকে মুসলমানরাঙত পাসিলহান। গিরক রাজা অনার পিসেদে মণিপুরর যা যাবতীয় ধর্মগ্ৰন্থ উতারে পুড়ে দেসিল।
    ঔতা বাদেও গিরকর সম্পর্ক লেম্পা ইতিহাস না পানিয়ে গিরকরে অনুপ্ৰবেশকারীেগৗ বুলতারা। বারো এরে গরীব
    নেওয়াজ উপাধি মনিপুরে কুঙ্গই দেসিল / দেসিলা উহানরও সঠিক প্ৰমাণ নাপাসি। কিন্তু অনুমান আহান করে পারিয়ার
    যে মায়ানমারর আরাক আহান অঞ্চলে মুসলিমরাজাও রাজত্ব করেসি বারো ঔ রাজা উতার তুল ঔ সময়ে ১৪৩০-১৬৩৮
    উগদে ‘সালাইম্যান শাহ’ (নরমেখলা) রাজত্ব করেসিল। ঔ সময়ে বাংলার নবাবগ আসিলতাই জালাল উদ্দিন শাহ।
    উহানর প্ৰমাণ Dr. Yunus তার করপেকহানাত মাতেসে, “Buddhism, Hinduism or Islam has had strong
    influence on the religious predominance over arakan during the same period.”
    ঔহানে অনেকে নিঙকরতারা, ১৭০৯ অর মাপাত পামহৈবা অনুপ্ৰবেশ করেসিল। কিন্তু ঐতিহাসিকর বির্তক লমনেই।
    A short history of Manipur, করপেকহানরমা গরীব নেওয়াজর আরাক নাঙ গোপাল সিং বুলিয়া উল্লেখ করেসে।
    বারো ঔ লেরিকেই মণিপুরর মাটিত ৬৭গ রাজত্ব করেসিলা বুলিয়া দাবি করেসি কিন্তু মেলাগো ঐতিহাসিক তানুর
    ইকরা লেরিক ৩৩খ্ৰীস্টাব্দে ১৯৪৯ অর সময় এহানাত ৭৬গ রাজা রাজত্ব করেসিলা বুলিয়া দাবি করেসিলা।
    এহানাত প্ৰশ্ন আহান উঠের যে ৩৩খ্ৰীস্টাব্দে আগে মণিপুর মাঠিত কি কােনা রাজা রাজত্ব নাকরেসি থাঙ ? উহান
    হারপানির আগে ডঃ সুনীতি কুমার চট্টোপাধ্যায় “কিরাত জন কৃতি” লেরিকে ইকরেসে মন্তব্য আহান চেইক − “King
    Bhagya Chandra or Joi Singh was the 54th king of Manipur after Pakhangba”, তারমানে ২য় শতকের
    ১৮শ শতকর ভিতরে ৫৪গ রাজা রাজত্ব করেসিলা, বারো ঔ লেরিক উহানাতেই মাতেসে বভ্ৰুবাহন এত্ব পাখাংবার
    সময় উহান পেয়া মোট ১৩গ রাজা রাজত্ব করেসি৷ এহানাত রাজমোহন নাথর উক্তি আহান তুলিয়া ধরানি অইল −
    “As in Burma, in spite of the fact that Devanagari Pyu, Talaing and Pali scripts had been in use for a
    very long time, Anwarta the great, introduced the new Burmese script in 1044 A.D. so in Manipur in
    spite of the Devanagari script which the kha-la- chais might have been using.”
    কােনা কােনা ঐতিহাসিক এ ভূল তথ্য দিয়াও ইতিহাস রচনা করানির চেস্টা করেসি। ডঃ সুনীতিকুমার চ্যাটার্জ্জীর মতে
    ৩৩ খ্ৰীস্টাব্দে যে পাখাংবাগর উল্লেখ করেসী উগ ১২০ বছর রাজত্ব করেসিল কিন্ত ইবহাল সিংহর পাখাম্বা ৪০ বছর
    রাজত্ব করেসিল উতাও ৯৮০-১০২০ খ্ৰীস্টাব্দে অর্থাৎ দশম শতকে। উহানাও প্ৰমাণ অর ইবহাল সিংহর এতা হাবি
    গতিবিধি বারো মনগড়া কাহিনী ইকরিয়া বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর অস্তিত্বহান মুসানির চেস্টা করেসিল। বারো কােনা
    রাজা আগ ১২০বছর রাজত্ব করানির য়ারি এহানৌ সাধারণ পাঠক সমাজ হজম করতে হিনপেইতাই। যদি ইবহাল সিংহর
    সমর্থন করিয়ার উহান ইলে ৯৮০ আগে কুঙ্গ রাজত্ব করেসিল? এ বিষয় এহানর নিশ্চয়তা নেই রাজমোহন নাথে
    মাতেরতাই —
    “The Manipuris are divided into two main tribes the kha la chais who call themselves Bishnupriya
    are supposed to have been the first ruling race and the meithei or meitei who call themselves real
    Manipuri are supposed to have been the next immigrants their language is distinctly different the
    kha la chais language is more than akin to the Kamrupi tongue. And the meithei language is more
    akin to the Bodo Chinese Group.”
    এবাকা বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর শব্দ গজে আলোচনা করানি থক, মেলাগই এহান ˰শ্বীকার করেসি যে বিষ্ণুর প্ৰিয় অর্থে বিষ্ণুপ্রিয়া।।
    বিষ্ণুর প্ৰিয় কিয়া ? বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীর দাপায় নিজরে অর্জ্জুনর বংশধর নিঙকরতারা।
    মহাভারতর আদিপবানুসারে তৃতীয় পান্ডব অর্জ্জুন মণিপুরে আহেসিল বারো চিত্ৰাঙ্গদার লগে লহঙর বাঁধনে বাঁধেসিল। পিসেদে মুনিসৌ আগ জরম অসিল যেগর নাঙ বভ্ৰুবাহন। ঔতা বাদেও অর্জ্জুন মণিপুর মাটিত আহেসিল উহানর প্ৰমাণ
    “মণিপুরী প্ৰসঙ্গে কিছুকথা ও রাসলীলা” নাঙর প্ৰবন্ধ উগত ইকরেসু। ঔতা বাদেও ঐতিহাসকর তথ্য উহান তলে দেনা অইল। কালিসা/খালসা মণিপুরর আদিবাসী ঐতিহাসিকে ইকরেসিতা —
    “It is quite probable that the kha la chais were the first cultured race in possession of the Manipuri
    valley and they were connected more with the neighbouring kingdom of Kamrup than with other
    countries and that is why their language is more akin to Kamrupi. It is also very likely that very early
    times they were influenced by the Vishnu cult either from Kamrupa or other parts of India, and they
    named their capital town as Vishnupur. The meitheis were later immigrants. They were more akin
    to the Chinese or the thais and their language and habits are more Mongolian.”
    আরাক বেদে ১৭৯৪ মারিত গোস্বামী শান্তি দাস মুনিপুরে গেসিলগা বারো তার প্ৰচারিত বৈষ্ণব ধর্ম বা রামান্দী ধর্ম
    উহানর ভাবাদর্শে সম্পূর্ণভাবে প্ৰভাবিত অয়া পামহৈবা বৈষ্ণব ধর্ম লসিল। এহান হাবিয়ে হারপাসি যে বিষ্ণুর উপাসক =
    বৈষ্ণব ৷ ইতিহাস পেয়ারতা —
    “Vishnu cult got a further impetus khagendra (1579-1651) installed a Vishnu image in Yengbam
    village, and it is still known as khagendra Vishnu temple and palaces were built with bricks by
    architects brought from tipperah and Koch behar guns were cast in bell metal. In 1627 AD,
    khagendra introduced the meithei as the court language in place of Vishnupriya or kha-la-chais
    language.”
    গজর ইকরা এহানাত আমি বিষয় এহান উপ পািরয়ার খগেন্দ্ৰ গিরকে কি ধরনের কাম করেসি ৷ আরাক বেদে Valley
    Society of Manipur করপেকে মৈরাঙথেম কীর্তি সিং গিরকর তথ্য উহান যে পয়লা উল্লেখ করেসিলু উহানৌ ডাঙর
    প্ৰমাণ আহান। বিশিষ্ট ঐতিহাসিক রণজিৎ কুমার সাহা মাতেরতা —
    “The Bishnupriya Manipuri are the first cultured ruling in Manipur and Meithei are the next
    immigrants.”
    এবাকা গজর তথ্য অনুসারে যদি আলোচনা অর উহান ইলে পরিষ্কারক মাতে পারিয়ার যে মণিপুরর পয়লাকার
    ভাষাহান বিষ্ণুপ্রিয়া আর এহানর প্ৰমাণ মৈতৈ পুরান বিজয় পাঞ্চালির ২য় খন্ডর ২৬৮নং পাতাত পেয়ার — “ওঁ কারাদি উচ্ছারণ পূর্বে হইতে হয়।
    কালব্ৰমে সংস্কৃতে ভাষার ব্যহত্তয়॥
    এই হেতু মণিপুর আযতজাতি কয়।
    সেহেতুক শাস্ৰরীতি কর্মাদি করয়॥
    ডঃ কালীপ্ৰসাদ সিংহর মতে “This language (Bishnupriya) was formed in the land of Manipur in such
    villages like Hirok Khangabak.”
    অনেকগই বারো মহাভারতর মণিপুর বলতেু উরিষ্যার মনিপুর মাতিয়া দাবী করতারা ৷ যদিও প্ৰথ্যাবত ভাষাত্ববীদ
    ডঃ সুনীতিকুমার চ্যাটার্জ্জীর (“কিরাতা জন কিরিতি” Contribution Indo mongoloid people calcutta 1950 and
    edition 1974 page no 124 edited by Sanjaoba in Manipur past and present page no. 4) ĺলিরেক ĺপয়ার
    “The legend of Arjuna and Chitrangada which is very well known in India because one might say,
    the pirot for linking up Manipur with Brahmanical Purana tradition.”
    গজর তথ্য উতা ইলয়া আলোচনা করলে এহান নিশ্চিত যে মণিপুর এহান আর্য্য জাতির লাম আহান। বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরি
    নিজরে অর্জ্জুনর বংশধর পঞ্চ বিষ্ণুপ্রিয়া বুলতারা ঔতার প্ৰমাণ ও ইতিহাসে পেয়ার। বভ্ৰুবাহনর বংশধর ক্ষূমল, মৈরাঙ,
    আওম, লোয়াং বারো মাঙাং এরে পাঁচহান ভাগে ভাগ করেসি।
    History of Manipur লেরিকে পঞ্চ বিষ্ণুপ্রিয়ারে The Five Principalities বুলিয়া উল্লেখ আসে। এহানর সমর্থনে MC
    Cullok গিরকে উল্লেখ করেসেতা —
    “The Bishnupriya Manipuri divided into five clains namely Khumal, Moirang, Angom, Luang and
    Mangang, in five regions of Manipur valley and they were collectively known as “Pancha
    Bishnupriya.”
    মণিপুর রাজ্ সভার সভাকবি লাঙ্গুই লাখোই গিরকে ইকরেসেতা।
    “পশ্চাৎ শ্বারস্বতৈস্তং শশধর কুলজৈ মুর্দগলপত্যস গৌত্ৰেঃ।
    লব্ধা সাম্ৰাজ্য লক্ষী সুবিদিত চরিত্র বভ্ৰুবাহশ্চ শ্ৰেস্টেঃ॥
    [ মনিপুরদের ইতিহাস – দীননাথ সিংহ থেকে সংগৃহীত ]
    অর্থাৎ তৃতীয় পান্ডুপুত্ৰ অর্জ্জুনর রসে চিত্ৰবাহুর জিলক চিত্ৰাঙ্গদার উরকে মদুগল্য গোত্ৰত বভ্ৰুবাহন জরম অইল, যেগ
    মণিপুর রাজ্যর অধিপিতগ।। ।।জয় ইমা বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী জয়।।

মূর্তি পূজা, দেব দেবীগণের মূর্তি কিয়া পূজা করিয়ার? : বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ইমার ঠারে।

Uncategorized

মূর্তি পূজার তত্ত্বহান: হাব্বির মুংঙে ফংকরলু বুল ছুটি থাইলে অবুজ এগরে ঙাকরে দিয়ো দশ গিরিগিথানীয়ে।🙏🙏🙏
🎍 হানতে মূর্তি পূজার তত্ত্বহান হারপানি মনেইলে আমার তা পয়লা প্ৰভু (মাপুরে) চিনা নি লাগতই বারো দৌ বুলতে সনাতন দর্শনশাস্ত্ৰে কিতা মাতিয়া ফংকরেসি।

প্ৰভু শ্রীকৃষ্ণ বারো দৌ।

পয়লাই মাতিং সনাতন দর্শনে আমি একেশ্বরবাদে বিশ্বাসী।
হিন্দু শাস্ত্র মতে,
প্ৰভু এক বারো অদ্বিতীয়।
সনাতন দর্শনে মাতের, ঈশ্বর স্বয়ম্ভূ অর্থাৎ প্ৰভু তা নিজেই উৎপন অসেতা, তার কোন স্রষ্টা নেই, প্ৰভু তা নিজেই নিজর স্রষ্টাগো।
আমার আইদ্দেকার ঋষিতুল্য মহাপুরুষ তানু মাতিয়া গেসিগা, ঈশ্বরের কোন নির্দিষ্ট রূপ নেই (নিরাকার ব্রহ্ম) উহানে প্ৰভু অরূপ, তা যে কোন রূপ ধারন করে পারের কারণ তা বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে সর্ব ক্ষমতার অধিকারীগো।

সর্ব শক্তিমান প্ৰভুর কোন বাবা ইমা নেই, তাঁর কোন প্রভু নেই, তাঁর গজে আর কুনো মাপু নেই”

“ন তস্য প্রতিমা আস্তি”
অর্থ- “সর্বশক্তিমান প্ৰভুর কোন মূর্তি নেই”।
প্ৰভু আগ্গো কিন্তু দেবদেবী নিয়ামপারা। তাইলে দেব দেবী কুনতা?
মনে থনা লাগতই দেবদেবীগণ এতা মাপু নাগৈ। দেব দেবীগন এতা মাপুর সগুনর প্রকাশ।।

অর্থাৎ মাপুর আক আকহান গুনর সাকার প্রকাশ এতাই দৌ। প্ৰভু নিরাকার কিন্তু তা যে কোন রূপে সাকার অয়া আনা পারের।

উহানে, প্ৰভুর শক্তির সগুন রূপ- কালী, নবদুর্গা, কার্তিক।
বিদ্যা-সিদ্ধির সগুন রূপ- সরস্বতী, গণেশ।
ঐশ্বর্যের সগুন রূপ- লক্ষ্মী, কূবের।
মৃত্যুর সগুন রূপ- কালভৈরব, ভূতনাথ, যমরাজা।
উসাদে প্ৰভু যেবাকা সৃষ্টি করের উবাকা ব্রহ্মা (দেব)
যেবাকা পালন করের উবাকা বিষ্ণু (দেব)
আর প্রলয়রূপে শিব (দেব)
তা যেবাকা আলোপ্রদান করের উবাকা – সূর্য ও চন্দ্র
বার পঞ্চ ভূত- ক্ষিতি, অপ, মরুৎ, বোম, তেজ
এসাদে নিরাকার প্ৰভুর সাকার গুনের প্রকাশ পেয়ার।

এর কারণে বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে যেতা আছে হাব্বি একতাই প্ৰভুর অংশ। আর অংশ এতাই দেবদেবী।

এবাকা প্রশ্ন তাইলে কয়গো মোর প্ৰভুরতি ? অর্জুন এপেইত শ্রী কৃষ্ণর বিশ্বরূপহানর কোনো সীমা নেই অর্থ্যাৎ তার আরম্ব শেষ নেয়সিল অর্থ্যাৎ অসীম।
তাইলে আমি এবাকা বুঝে পারলাঙ দেবদেবী অনেক অইতে পারে কিন্তু প্ৰভু এক বারো দেবতাগণ তানু পরম ব্রহ্মেরই বিভিন্ন রূপ।
বিষ্ণু, “সর্ব্বং বিষ্ণুময়ং জগৎ” মানে সমগ্র জগৎ বিষ্ণুময়।

এবাকা দেব দেবীগণের মূর্তি কিয়া পূজা করিয়ার।
মূর্তি পূজার রহস্য ?
মানুর মন স্বভাবতই চঞ্চল।পার্থিব জগতে আমার চঞ্চল মন নানা কামনা বাসনা লো আবদ্ধ। আমি চেইলৌ এ কামনা বাসনা এতাতো কুনোতা পানার আকাংক্ষা তো মুক্ত অনা নৌ পারিয়ার। যেমন শিক্ষার্থী আগো তার শিক্ষা জীবনের বাসনা থার পরীক্ষায় পয়লা নং অয়া পাস করানি। এহানর সালে তা বিদ্যার দেবী সরস্বতীর আরাধনা করের।)

হিন্দু ধর্মে পূজা এহানর বৈশিষ্ট্য হান। কল্পনায় উবা অয়া সত্যহানর উত্তরাদিতর হানৈ মূর্তি পূজার সার্থকতাহান।
উহানে আমি প্ৰভুরে স্বয়ং নৌ পেয়ার মাটির দৌ হংকরিয়া প্ৰভুরে আহ্বান করিয়া মাপুর সগুনর দেব দেবীর পূজা করিয়ার, হাব্বির মঙ্গল অয়া থায়ইক বুলিয়া।।🙏🙏🙏🙏

Be A Somebody that Counts : Krïshñä Sïñhä 💕

Uncategorized

Knowing is not Enough, we must Apply it. As an educator, Social Worker, A Philanthropist, A Blogger it’s my duty to pass on my teachings Experience so that atleast 2/3 Circles must get benefited with the Influence. That’s why I’m here day after day, week after week, providing all of you with access to my Knowledge and share my experience thru Social Network. Knowing alone is NOT Enough, We Should Expand Wide and Far.
Be A Somebody that Counts.
http://www.krishnasinhablog.wordpress.com
🌹 🌹 🌹
Have a Great Day Ahead 😊
Love You Fellas. 🌅

Krïshñä Sïñhä 💕

MotherLanguageDay : Licypriya Kangujam

Uncategorized

Lucy’s Words at the Young Age – Many people told me that Go to School & learn English first before using Facebook. But I don’t speak English & Hindi. My English is just for communication only. I’m proud of my mother tongue – Meiteilon. India is diverse bcoz of people like us. #MotherLanguageDay Licy Priya She’s a Very Young Global Influencer, Orator, Speaker, Leading Young Climate Environmental Activist and Raise Her Voice towards Environmental and Climate Issue at the Age of Six. Now She’s Nine Year’s Old. Such an Inspiration to All the Youngsters of this Earth a leading face of the Globe.

Licypriya Kangujam
Licypriya Kangujam
Speaker Licy Priya

আন্তর্জাতিক ইমার ঠার দিবস ২১ শে ফেব্রুয়ারি।

Uncategorized

ইমার ঠার পুঞ্চিপালক ইমার জিপুত দশর মালেমে ইঙাল ঙালকা।
হাব্বিরে শুভেচ্ছা জানাউরি হারৌপার আন্তর্জাতিক ইমার ঠার দিবস।
জয় ইমা বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী।

21 February was declared to be the International Mother Language Day by UNESCO in 1999. It has been observed throughout the world since 21 February 2000. The declaration came up in tribute to the Language Movements On 21 February 1952, then Another Language Movements took part by Bishnupriya Manipuri Students Unions in 16th March 1996 Rail Blockades of  501 Hrs in Kalkighat. Where We Lost Our Beloved Mother Language Lover Kumari Shahid Sudeshna Sacrifice her life for Sake of Mother Language in Kalkighat Police Opened fire on Rallies. We never forget those Language Martyrs. Tribute From Core of my Heart.

International Mother Language Day

আন্তর্জাতিক ইমার ঠার দিবস।

Uncategorized

“ইমার ঠার পুঞ্চি পালক (মাতৃভাষা অমর হোক)”
আজ বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা শহীদ সুদেষ্ণা দিবস

প্রারম্ভিকঃ
একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। ভাষার জন্য রক্ত দেবার এ ইতিহাস পরম গর্বের। ১৯৫৩ সাল থেকে এ দিনে আমরা ভাষাশহীদদের স্মরণ করে আসছি; তার পাশাপাশি ১৯৯৯ সালে ইউনেস্কোর স্বীকৃতির পর ২০১০ সাল থেকে পুরো বিশ্ববাসীর কাছেই একুশে ফেব্রুয়ারি আজ স্ব-স্ব ভাষার গুরুত্ব মূল্যায়ণে এক অবিস্মরণীয় দিন। আমরা জানি, বাংলা ভাষার জন্য এরপরও প্রাণত্যাগ করতে হয়েছে ভারতের আসাম রাজ্যে বরাক উপত্যকায় যথাক্রমে ১৯৬১ সালে ১৯ মে; ১৯৭২ সালের ১৭ আগস্ট এবং ১৯৮৬ সালের ২১ জুলাই তারিখে। এখন প্রশ্ন হলো, শুধু বাংলা ভাষার জন্যই কি শহীদদের আত্মত্যাগ? এমন অন্য কোনো ভাষা কি নেই, যার জন্য কাউকে বিসর্জন দিতে হয়নি কোনো প্রাণ?
হ্যাঁ। আমাদের কাছাকাছি এরকম একটি ভাষা আছে, তার নাম ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা’, যার জন্য ঝরাতে হয়েছে কয়েকটি প্রাণ। তাদের একজন সুদেষ্ণা সিংহ। আসুন, একটা গল্প দিয়ে শুরু করি।

বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা আন্দোলনঃ
ভারতের পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব এবং বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলে বসবাসকারী এক প্রান্তিক জাতির নাম বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী। ব্রিটিশ শাসনামলের প্রাক্কালে ইঙ্গ-বর্মী যুদ্ধের পর মণিপুর থেকে এরা উত্তর-পূর্ব ভারত, বার্মা ও বাংলার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পড়ে। সেই মণিপুরীদেরই একটি অংশ এই বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী। এছাড়া রয়েছে মৈতেয় মণিপুরী, পাঙন মণিপুরী।
বর্তমানে ভারতের আসাম রাজ্যভুক্ত হাইলাকান্দি, কাছাড়, পাথারকান্দি, করিমগঞ্জ, মেঘালয়, ত্রিপুরা ও মণিপুর রাজ্যে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী সম্প্রদায়ের অধিকাংশের বসবাস। বাংলাদেশে মৌলভীবাজার ও সিলেট জেলাতেও এ জাতির বসতি চোখে পড়ে।
ভারতের মণিপুরসহ আসামের বরাক ও ব্রহ্মপুত্র উপত্যকা, এমনকি বাংলাদেশেও ‘কে মণিপুরী আর কে নয়’- তা নিয়ে একটি আন্তঃজাতিগত দ্বন্দ্ব বিদ্যমান ছিলো। মণিপুরীদের আদিভূমি মণিপুরের সিংহভাগ আধিবাসী মৈতেয়। ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাগোষ্ঠীর সদস্য হবার কারণে এবং বাংলা-অহমিয়ার সাথে সাদৃশ্যের জন্য বিষ্ণুপ্রিয়াদের ভাষাকে ‘মণিপুরী ভাষা’ হিসেবে অনেক মৈতেয় স্বীকৃতি দিতে নারাজ।
অন্যদিকে ভারতের জাতীয় নথিপত্রসমূহে দুই জনগোষ্ঠীকেই ‘মণিপুরী’ হিসেবে দেখানো হলেও ‘মণিপুরী’ ভাষা হিসেবে বারবার প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে বিষ্ণুপ্রিয়া। ২০০৭ সালের ৮ মার্চ ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের একটি আদেশে বিষ্ণুপ্রিয়া ‘মণিপুরী’ ভাষা হিসেবে তার মর্যাদা ফিরে পায়। যা-ই হোক, এ আলোচনায় বিরতি দিয়ে আবার ফিরে যাওয়া যাক ইতিহাসে।
১৯৯২ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর রবিশংকর সিংহ, কুলচন্দ্র সিংহ প্রমুখের নেতৃত্বে ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী গণসংগ্রাম পরিষদ’ গঠিত হয় । ১৯৯২ থেকে ১৯৯৫ এ সময়টুকুর মাঝে আসাম ও ত্রিপুরায় অসংখ্যবার রাজপথ ও রেলপথ অবরোধ, গনঅনশন, বিক্ষোভ কর্মসূচি এগুলো পালিত হতে থাকে। অনশনগুলো ২৪ ঘণ্টা থেকে শুরু করে ৪৮ ঘণ্টা এমনকি ১০১ ঘণ্টাব্যাপী পালিত হয়েছিল।
শেষ অবধি জনতার সংগ্রামে টনক নড়লো সরকারের। ১৯৯৫ সালের ২৬ মে প্রাথমিক স্তরে বিদ্যালয়গুলোতে বিষ্ণুপুরী মণিপুরী ভাষা চালু করে ত্রিপুরা সরকার। আসামে এ দাবি তখনো গৃহীত হয়নি, তাই মার্চ মাসে গণসংগ
১৯৯৬ সালের ১৬ মার্চ। দিনটি ছিলো শনিবার। এদিন ‘নিখিল বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী স্টুডেন্ট্স ইউনিয়ন’ সবচেয়ে দীর্ঘ ৫০১ ঘণ্টার রেল ও ট্রেন অবরোধ কর্মসূচী ঘোষণা করেছিলো। এ সময় রাজপথে বিক্ষুব্ধ আন্দোলনকারীরা আসামের কলকলি ঘাটের গুংঘাঝারি রেলস্টেশনে করিমগঞ্জ (আসাম, বাংলাদেশের সীমান্তে) থেকে আসতে থাকা একটি ডাউন ট্রেন অবরোধ করে। আন্দোলন চলাকালে কোনো ধরনের পূর্বঘোষণা ছাড়াই পুলিশ অবরোধকারীদের উপর লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে, ঠিক যেমনটা ঘটেছিল বীর বাঙালির রক্তঝরা বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের মিছিলে।
মুষ্টিবদ্ধ আন্দোলনকারীদের পুরোপুরি নিস্তব্ধ করে দেওয়ার অভিপ্রায়ে আসাম সরকার ভাষার প্রশ্নে রক্ত ঝরাতে বাধ্য করে। সেদিন পুলিশের গুলিতে ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় আহত হন শতাধিক বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী। ঘটনাস্থলেই সকাল ১২:১০ ঘটিকায় মারা যান বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী বিপ্লবী নারী সুদেষ্ণা সিংহ। পরে হাসপাতালে নিহত হন আরেকজন বিপ্লবী তরুণ সলিল সিংহ।
১৯৪৭ সালে দেশবিভাগের পর ভারতের সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রের সকল ভাষাভাষীর প্রাথমিক স্তরে মাতৃভাষায় শিক্ষাগ্রহণের মৌলিক অধিকার দেওয়া হয়। কিন্তু আসামে বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীদের এই অধিকার দীর্ঘদিন ধরে না থাকায় জন্ম নিয়েছিল সম্ভবত সবচেয়ে দীর্ঘ এক ভাষা আন্দোলনের। আসামের বরাক উপত্যকায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা আন্দোলনের সূত্রপাত ১৯৫৫ সালে। সে বছর ‘নিখিল বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী মহাসভা’ মাতৃভাষায় শিক্ষাদানের সাত দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করে, পরে যা ‘সত্যাগ্রহে’ রূপ নেয়। দশকের পর দশক ধরে এ আন্দোলন ব্যাপক উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে চলতে থাকে, অথচ নিজ ভাষার স্বীকৃতি মেলেনি বিষ্ণুপ্রিয়াদের।
এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আসাম ও ত্রিপুরাজুড়ে গণআন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে ওঠে। এসবের জেরে পরবর্তীতে সকল দাবি মেনে নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় আসাম সরকার। ২০০১ সালের পয়লা ফেব্রুয়ারি আসামে বরাক উপত্যকার প্রায় সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে (১৫২টি) বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষায় পাঠপঠনের ব্যবস্থা চালু করা হয়। এর ছয় বছর সুপ্রিম কোর্ট কর্তৃক স্বতন্ত্র মণিপুরী ভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পায় বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষা।

সুদেষ্ণা’র শেষ বিদায়ের দিনঃ
১৬ মার্চ ১৯৯৬ সাল দিনটি ছিল শনিবার, বাংলা ১৪০২ সনের ২রা চৈত্র। লোঙাই ঘাটের দক্ষিণ পাড়ে কচুবাড়ি গ্রাম। দলে দলে জয়োধ্বনি করতে করতে কচুবাড়িবাসীরা ‘ইমার ঠার’-এর আন্দোলনে যোগ দিতে লাগল। সুদেষ্ণাও ছিল কচুবাড়ি গ্রামের। সে ঘর থেকে বের হবার সময় মায়ের কাছে কিছু টাকার আবদার করেছিলো। কিন্তু দুঃখিনী মায়ের কাছে ছিল না কানাকড়িও।
সুদেষ্ণার সাথে ছিল তাঁর বান্ধবী প্রমোদিনী, বিলবাড়ি গ্রামের এক তরুণী। সুদেষ্ণা অবশেষে প্রমোদিনীর কাছেই দুটি টাকা ভিক্ষা চেয়ে নেয়। সকৌতুকে প্রমোদিনী তার বান্ধবীকে জিজ্ঞেস করে, “কিসের জন্য এ দুটো টাকা? কলকলি ঘাটের এ পথে তো কোনো দোকানপাটও নেই!” সুদেষ্ণা নীরব। প্রমোদিনী দুটো টাকা বেঁধে দেয় সুদেষ্ণার আঁচলে। মিষ্টি হাসিতে সুদেষ্ণা তখন বলেছিল, “এ দুটো টাকা খেয়াপারের জন্য” (মৃত্যুর পর খেয়া পারাপারের মাধ্যমে অন্য জগতে পদার্পণ করতে হয় বলে বৈষ্ণব ধর্মাবলম্বী মণিপুরীদের বিশ্বাস)।
প্রাণপ্রিয় বান্ধবী প্রমোদিনীর কাছে সুদেষ্ণার দ্বিধাহীন শেষ কণ্ঠবাণী,
“মোর রকতলো অইলেউ মি আজি ইমার ঠারহান আনতৌগাগো চেইস” (দেখিস, আমার রক্ত দিয়ে হলেও আজকে আমি আমার মাতৃভাষাকে কেড়ে আনবো)।
[শহীদ সুদেষ্ণা’র স্মরণে একটি গীতিকাহিনী হতে সংগৃহীত গল্প, কণ্ঠশিল্পী: বীনা সিনহা]

সুদেষ্ণা’র গল্প: ‘বুলু’ কাহিনীঃ
১৯৬৫ খ্রিষ্টাব্দের ১৫ ফেব্রুয়ারি। আসামের বরাক উপত্যকা, যার ঠিক নিচেই সুরমা উপত্যকা, সেখানে কচুবাড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন এক শিশুকন্যা, নাম তার সুদেষ্ণা সিংহ। গ্রামবাসীরা আদর করে তার ডাকনাম দেয় ‘বুলু’।
যতদূর জানা যায় এক দরিদ্র পরিবারে জন্ম নেন সুদেষ্ণা; পরিবারের সহায়-সম্বলহীন সামর্থ্যকেই চিরসঙ্গী করে নিয়ে তাঁর ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠা। এভাবে কেটে যায় বত্রিশটি বছর। ১৯৯৬ সাল। একদিন আসামের ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী’ অধ্যুষিত এলাকায় ডাক আসে ‘ইমার ঠার’ আন্দোলনের। বিষ্ণুপ্রিয়া ভাষায় ইমার ঠারের অর্থ ‘মায়ের ভাষা’। দলে দলে বিষ্ণুপ্রিয়াভাষী মানুষ জড়িয়ে পড়ে এ আন্দোলনে। নিজ ভাষার অস্তিত্ব রক্ষায় রেল অবরোধ কর্মসূচীতে অংশ নিতে অন্য সবার মতো সুদেষ্ণাও মার্চের (বাংলা চৈত্র মাস) এক কাঠফাটা দিনে বিদায় নেন মায়ের কাছ থেকে। কিন্তু কে জানতো, সেই বিদায়ের দিনটিই হবে সুদেষ্ণার চিরবিদায়ের দিন! গল্পের বাকিটা একটু পরেই বলা যাক, ঘুরে আসি ইতিহাস থেকে।

সুদেষ্ণা সিংহ নিজের মৃত্যুর মাধ্যমে একটি ভাষাকে তার মৃত্যুদশা থেকে বাঁচিয়ে দিয়েছেন। তাই পৃথিবীর ভাষার ইতিহাসে এবং বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী জাতির ইতিহাসে এ ১৬ই মার্চ অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিন। বাংলাদেশের পূর্বে এবং ভারতের উত্তর-পূর্ব প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরীরা কখনোই সুদেষ্ণা এবং তার আত্মত্যাগের কথা ভুলতে পারে না। আসাম সরকারের পাশাপাশি ত্রিপুরা সরকারও এ দিনটিকে ‘ভাষা দিবস’ হিসাবে ঘোষণা করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশ-ভারত উভয়প্রান্তের বিষ্ণুপুরী মণিপুরীভাষী মানুষ প্রতিবছর রক্তঝরা এ ১৬ মার্চকে স্ব-ভাষার প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে ‘শহীদ সুদেষ্ণা দিবস’ হিসাবে পালন করে থাকে।

রাষ্ট্রের বন্দুকের গুলির সামনে দাঁড়িয়ে সুদেষ্ণা সিংহ প্রতিষ্ঠা করে গিয়েছেন তাঁর মাতৃভাষার সম্মান, বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী ভাষায় কথা বলার অধিকার। ১৬ মার্চ ক্যালেন্ডারে শুধুমাত্র একটা দিবস নয়, এটা বাংলাদেশেরও একটি প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জাতিগত অস্তিত্ব, ‘বিষ্ণুপ্রিয়া মণিপুরী’দের বেঁচে থাকা। ফেব্রুয়ারির ‘২১’, মে মাসের ‘১৯’ আর মার্চের ‘১৬’ সংখ্যা তিনটি পৃথক হলেও অন্তরে এ তিনটি সংখ্যার একই বোধ ক্রিয়াশীল, পুরোটা ইতিহাস জুড়েই মাতৃভাষার প্রতি অনুরাগ!

পরিশেষেঃ
২০১৯ সাল ছিল জাতিসংঘ ঘোষিত ‘আন্তর্জাতিক আদিবাসী ভাষা বর্ষ’; এ উপলক্ষ্যকে সামনে রেখে পৃথিবীর আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা প্রতিটি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীই স্ব-মাতৃভাষার লালন, পালন ও সংরক্ষণে কাজ করে এসেছে, আজ অবধি কাজ করছে। আসুন, সত্যিকার অর্থে মায়ের ভাষাটাকে ভালোবাসি, পাশাপাশি অন্যান্য জনগোষ্ঠীর ভাষাকে শ্রদ্ধা জানাই। আসুন, পরবর্তী প্রজন্মের কাছে বিভিন্ন ভাষার বিভিন্ন রঙের ছটা ছড়িয়ে যেন ভাষাবৈচিত্র্যের পরিচয় দিতে পারি, বাংলার পাশাপাশি অন্য ভাষার প্রতিও ভালবাসা জানাতে পারি। মাতৃভাষা অমর হোক, ভাষাশহীদরা বেঁচে থাকুক আমাদের হৃদয়ের মণিকোঠায়।

তথ্যসূত্রঃ https://roar.media/bangla/main/history/language-martyr-sudeshna/

CMB App Release on Playstore : Good News for Every One

Uncategorized

CMB App Installation ✅ Done.
Such a Lovely Apps Little Bit Similar to Amar Ela Apps But Lot’s of Other Features Like PPV Bishnupriya Manipuri Movies and Web Series Serials are there that’s Make it Immense Stuff.
Thanks CMB Team ❤️
Best Wishes and Congratulations
https://play.google.com/store/apps/details?id=com.cmb.app
Should Provide Track Download Options.
Comment Section reply mode need to be improve. Rest is Lovely ❤️ So Guys Let’s Download it from Playstore and Enjoy the Application.
Hiren Sinha 💕

CMB App Installation